শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১১:৪৮ অপরাহ্ন

ঘর-সংসার সামলে এগিয়ে চলা এক নারী উদ্যোক্তা রত্না আক্তার
লিটন সরকার বাদল, / ৩৪১ ভিউ
সর্বশেষ আপডেট : শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২

 তথ্য প্রযুক্তির এই সম্ভাবনার যুগে নারীর পথচলা আরও সুগম হয়েছে । থেমে নেই আমাদের নারীরাও, কোনোভাবে স্বাবলম্বী হতে চান বর্তমান সময়ের আধুনিক নারীরা। ঘর-সংসার-বাচ্চা সব সামলে অনেক নারী এখন অনলাইন ব্যবসার সঙ্গে ওতোপ্রতভাবে জড়িত , আবার অনেক নারী শুধু ব্লগিং করেই সফল হয়েছেন। তেমনই ঝিনাইদহে এক সংগ্রামী নারী রত্না আক্তার। সংসারের পাশাপাশি একদিকে পড়াশুনা চালিয়ে যাচ্ছে অপরদিকে ঘরে বসেই অনলাইনে ব্লগিং করে উপার্জন করছেন অর্থ। এই গৃহিনী একদিকে ব্লগার অপরদিকে ঝিনাইদহ সরকারী কেসি কলেজের ডিগ্রী ২য় বর্ষের ছাত্রী। রত্না আক্তার মনে করেন, নারীরা আর সমাজে অবহেলিত থাকবে না। ইচ্ছা শক্তি ও চেষ্টার মাধ্যমেই সফলতা আসবে। সে কারনে তিনি হাল না ছেড়ে স্বামীর ও শশুড় বাড়ির পরিবারের সদস্যদের সহযোগিতার মাধ্যমে এগিয়ে যাচ্ছেন। এ বিষয়ে সংগ্রামী নারী রত্না আক্তার সাথে কথা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ঝিনাইদহ জেলা শহরের মোল্লা পাড়ার একটি কোচিংয়ের পরিচালক ও তরুন সমাজ সেবক ইমরান হোসেন এর সাথে দীর্ঘ সাত বছর আগে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। তাদের পরিবারে শশুড়-শাশুড়ি, ননদ ও একটি মাত্র মেয়ে নিয়ে সংসার। প্রথমে তিনি সংসারের পাশাপাশি লেখাপড়া চালিয়ে যান। তারপরে চিন্তা করেন কিভাবে ঘরে বসে অনলাইনে বিজনেস করা যায় ? সেইটি মাথায় আসলে তিনি অনলাইনে থ্রিপিচ এর ব্যবসা শুরু করেন। তারপরে ফেইসবুক পেইজ খোলেন এবং তার মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করতে থাকনে। এসময় তার স্বামীসহ অনেক পরিচিত মানুষেরা তাকে উৎসাহ দিলে তিনি তখন ব্লগিং সম্পর্কে ধারনা পান। সে সময়ে তিনি লাকি সুমন ব্লগের ব্লগিংগুলো মনোযোগ সহকারে দেখে তাদের উদ্দিপনার মাধ্যমে ইমরান রত্না নামের ব্লগ নামে ফেসবুক পেজে আইডি খুলে ব্লগিং শুরু করি। এর পরেও তাকে নানা বাধা প্রতিকুলতা পেরিয়ে স্বামীর সহযোগিতার কারনে আজ প্রায় তিনলাখ ফলোয়ার হতে সক্ষম হয়েছে। তিনি আরও জানান, নারীদের সমাজে অনেক স্বাধীনতায় বাধা হয়ে দাড়ায় কিছু মানুষ। তারা সব সময় নারীকে খাটো করে দেখে ও নানা বিদ্রুপ করতে থাকে। প্রতিনিয়ত নানা মানুষের বাজে মন্তব্যগুলো শুনেও আমার লক্ষ্য পৌছানোর জন্য বদ্ধপরিকর। ঘরে বসে ব্লগিং করলে কিছু মানুষ সেইটি নিয়ে সমালোচনা বা বাজে মন্তব্য করবেই সেইটি মাথায় নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছি। তবে সবাইতো আসলে খারাপ না। অনেক মানুষের উৎসাহ, ভালোবাসা পাবার কারনে আজ তিনলাখ ফলোয়ার হয়েছে। তবে প্রথম দিকে এই পেজ চালাতে গিয়ে কিছু মানুষের খারাপ কথা শুনে হতাশ বা কষ্ট পেতাম তবুও আমি হাল ছাড়েনি। তিনি আরও বলেন, আমি যখন লাইভ বা ভিডিও পোষ্ট করেছি সেইটি মিলিয়নের ঘরে গিয়ে পৌছিয়েছে। অনেক ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। তবে আমি সফল কি না জানি না। আজীবন পরিবারের সহযোগিতা নিয়েই সমাজের মানুষের জন্য কিছু দিতে পারলেই ব্লগিং লাইনে হবে আমার স্বার্থকতা। নতুন এই উদ্যোক্তা রত্না আক্তার আরও বলেন, অন্য নারীদেরও উচিত হবে শুধু শুধু ঘরে বসে না থেকে সংসারের পাশাপাশি কিছু একটা করা। স্বপ্ন, সামান্য পুঁজি আর পরিশ্রম থাকলেই অনেক দূর এগিয়ে যাওয়া সম্ভব।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয়
সর্বশেষ