রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২, ১২:২৩ অপরাহ্ন

বরগুনা জেলহত্যা দিবস আজ ও আগামীকাল
জাহিদুল ইসলাম মেহেদী। বরগুনা প্রতিনিধি / ১১৩ ভিউ
সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২

বরগুনার ইতিহাসে শোকাবহ স্মৃতি বিজড়িত দুটি দিন ২৯ ও ৩০ মে । ১৯৭১ সালের এ দিনে পাকিস্তানি বাহিনী জেলখানায় নির্মম গণহত্যা চালায় । মুক্তিযুদ্ধে জড়িত এবং সম্প্রদায়িক দৃষ্টিভঙ্গিতে নির্বিচারে ৯২ জনকে হত্যা করে কোন প্রকার বিচার আচার এবং ধর্মীয় আচরণ ছাড়াই মাটি চাঁপা দিয়ে রাখে। প্রতি বছর দিবসটি পালিত হয় নানা আয়োজনে। এ বছরও সীমিত আয়োজন রয়েছে। মানুষের জন্য নিরাপদ স্থান বলে বিবেচিত বরগুনা জেলখানায় ৭৬ জন স্বাধীনতাকামী নিরপরাধ বাঙালিকে গুলি করে হত্যা করে হানাদার বাহিনী। পাক হানাদার বাহিনীর মেজর নাদের পারভেজের নেতৃত্বে স্থানীয় শান্তি বাহিনীর প্রধান এমএলএ আ. আজিজ মাস্টারের সহযোগিতায় এ নৃশংস গণহত্যা সংঘটিত হয়। উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে ২৭ মে মেজর নাদের পারভেজের নেতৃত্বে পাক হানাদার বাহিনী বরগুনায় প্রবেশ করে। তৎকালীন গণপূর্ত ডাকবাংলোয় অবস্থান নেয় বর্বর এ বাহিনীর সদস্যরা। ওইদিনই তারা বরগুনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন এবং মুসলিম লীগের নেতাদের সাথে বৈঠক করে একটি নিখুঁত গণহত্যার পরিকল্পনা করেন। গণহত্যা দিবস ২০২১ উপলক্ষে স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে পৌর শহরের বড়িয়াল পাড়ার গণকবর এলাকায় সাংসদ অ্যাডভোকেট ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু’র আয়োজনে এদিবস পালন করেন শহীদ পরিবারের সদস্য ও রাজনৈতিক অঙ্গ সংগঠন। একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় কারাগারে গণহত্যায় শহীদ হওয়া ধৈর্য ধর দেবনাথ পুত্র, হিমাদ্রি শেখর কেশব সরকারের কাছে দাবী জানান, স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় কারাবন্দি অবস্থায় নির্মমভাবে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে শহীদ হয়েছিলেন আমার বাবা। গণহত্যা হওয়া সকল পরিবারের পক্ষ থেকে আমার দাবি মুক্তিযোদ্ধা পরিবার হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হোক আপনাদের পরিবার। গণকবরে শহীদ হওয়া ব্যক্তিদের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দিলে তাদের স্বজনরা সরকারের কাছে কৃতজ্ঞ থাকবে। স্মরণ সভায়, বরগুনা ১ আসনের সাংসদ কন্যা শুকলা দেবনাথ, বরগুনা বার কাউন্সিলের সদস্য এডভোকেট কাদের , ছাত্রনেতা সাথীক রুবেল, জেলা ছাত্রলীগের উপ-আইন বিষয়ক সম্পাদক মোঃ সবুজ মোল্লা,জেলা তাঁতী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাগর কর্মকার সহ কয়েকজন আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। সাংসদ কন্যা শুকলা দেবনাথ বলেন, বরগুনা গণহত্যায় আত্মোৎসর্গ করা শহীদদের পবিত্র স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও সতর্কতা অবলম্বনের মাধ্যমে ভয়াবহ এই বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় বরগুনাবাসীর দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করাই হোক এবারের গণহত্যা দিবসের অঙ্গীকার।

আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
জনপ্রিয়
সর্বশেষ